1. khaircox10@gmail.com : admin :
বাঁকখালীতে নিজের মালিকানা দেখিয়ে উত্তরা ও জনতা ব্যাংক থেকে ঋণ - coxsbazartimes24.com
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম
উত্তর ধূরুং ইউপি নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতাদের অবস্থান! পর্যটন প্রতিমন্ত্রীর সাথে টুয়াক নেতৃবৃন্দের সাক্ষাত বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কক্সবাজার জেলা কমিটি অনুমোদন কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী’র উদ্যোগে উপজেলা পর্যায়ে উদ্যোক্তাদের দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচির উদ্বোধন মেয়র মুজিবের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন টুয়াক নেতৃবৃন্দ ডিসি, এসপি ও পৌর মেয়রের সঙ্গে সাক্ষাত করলেন টুয়াকের নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দ টুয়াকের সভাপতি আনোয়ার, সম্পাদক টিটু নির্বাচনের ইশতেহারে যা বললেন টুয়াকের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী টিটু ইউএসএআইডি এর অর্থায়নে ও রিলিফ ইন্টারন্যাশনাল এর উদ্যোগে “কোভিড-১৯ প্যানডেমিক ‍সিচুয়েশন অব কক্সবাজার” শীর্ষক ওয়েবিনার দুদক কর্মকর্তার বদলি চ্যালেঞ্জ করা রিটকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ

Ads

বাঁকখালীতে নিজের মালিকানা দেখিয়ে উত্তরা ও জনতা ব্যাংক থেকে ঋণ

  • আপডেট সময় : শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৮১ বার ভিউ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
অস্তিত্বহীন বাঁকখালী নদীর জমিতে নিজের মালিকানা দেখিয়ে কক্সবাজারের উত্তরা ব্যাংক ও জনতা ব্যাংক থেকে থেকে সাড়ে ১০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এইচএম নুরুল আলম নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। সেখানে উত্তরা ব্যাংকের ৫ কোটি ৫০ লাখ এবং জনতা ব্যাংকের ৫ কোটি টাকা।

অভিযোগ উঠেছে, যে জমি দিয়ে ব্যাংক ঋণ নেওয়া হয়েছে সেই জমির দুই তৃতীয় বাঁকখালী নদীর পানির নিচে এবং জমির অস্তিত্বও নেই।

এসব তথ্য জানিয়ে গত ১ ডিসেম্বর রামুর পশ্চিম চাকমারকুল এলাকার নুর আহমদের ছেলে এইচএম নুরুল আলমের বিরুদ্ধে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণরের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন কক্সবাজার শহরের কলাতলীর বাসিন্দা বেলায়েত হোসেন।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, ‘দুই ব্যাংকের ১০ কোটি ৫০ লাখ টাকা এখন বাঁকখালী নদীর জলে। ২০১৫ সালে সাড়ে ২২ কোটি টাকা দিয়ে কেনা জমির টাকার উৎস কোথায় তার কোন হিসেব নেই।’

অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, বাঁকখালী নদীর প্রায় ৫০০ একর জমি দখল করেছেন ১৫৭ জন প্রভাবশালী ব্যক্তি। স¤প্রতি তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এর অংশ হিসেবে বাঁকখালী নদীর খুরুশখুল সেতু সংলগ্ন প্রায় ২ একর জায়গা দখলের অভিযোগে এইচএম নুরুল আলমের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে দুদক। গত ৭ সেপ্টেম্বর প্রাথমিকভাবে দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর উপসহকারী পরিচালক মো: শরিফ উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক নোটিশের মাধ্যমে তাকে দুদক সমন্বিত জেলা কাযালয় চট্টগ্রাম-২ এ তলব করেছিল। নোটিশে পাসপোর্ট ও জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি চাওয়ার পাশাপাশি এইচএন আলমকে ২১ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১১টায় নদীর তীরের স্বত্ব সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্র এবং এ বিষয়ে কোন মামলা কিংবা রায় হয়ে থাকলে তার রেকর্ডপত্র নিয়ে হাজির হতে অনুরোধ করে দুদক। এক চিঠিতে উত্তরা ব্যাংক কক্সবাজার শাখার কাছে এইচএন আলমের আর্থিক লেনদেন ও ঋণ দিয়ে থাকলে তার সত্যায়িত কপি চাওয়া হয়।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, ঝিলংজা মৌজার কলাতলীতে পাঁচ কোটি টাকার সম্পদ অফেরতযোগ্য আমমোক্তারমূলে রেজিস্ট্রার করেন কক্সবাজার সদর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে। গত ৫ ফেব্রুয়ারী এই আমমোক্তারনামা রেজি; দলিল নং-৫২২ সম্পাদন করা হয়। এতে সরকারকে রাজস্ব বঞ্চিত করা হয়েছে প্রায় ৯৫ লাখ টাকা। ঝিলংজা মৌজার বাঁকখালী নদীও একইভাবে সাব কবলা রেজি: না করে অফেরতযোগ্য আমমোক্তারনামা সম্পাদন করে (দলিল নং-৪৬৪৫/২০১৫, তারিখ ২৩/১২/২০১৫) সরকারকে ২ কোটি ৬৩ লাখ টাকা রাজস্ব বঞ্চিত করা হয়েছে। এসব জমি ও টাকার বিপরীতে বিপুল আয়করও ফাঁকি দেওয়া হয়েছে।

তবে এসব অভিযোগের বিষয়ে এইচএম নুরুল আলমের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। নানাভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এইচএম আলমের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার। তিনি বলেন, এ ধরনের একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে আমরা খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু করেছি।

অভিযোগ প্রসঙ্গে চানতে চাইলে এইচএম নুরুল আলম বলেন, সেটা ব্যাংকের বিষয় তো, যেই দুই ব্যাংকের কথা বলা হয়েছে, সেই দুই ব্যাংক থেকে তথ্য নিলে আমার জন্য ভাল হয়। ঠিকভাবে বিষয়গুলো জানবেন।’

তিনি বলেন, ডকুমেন্টের ভিত্তিকে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আমাকে ঋণ দিয়েছে। সে বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ব্যাংকে যোগাযোগ করতে পারেন।

বাঁকখালী নদী দেখিয়ে ঋণ নিয়েছেন কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে এইচএম নুরুল আলম বলেন, `ওই রকম কোন জায়গা নাই আমার। ব্যাংকতো এত পাগল না যে, বাঁকখালী নদী দেখিয়ে টাকা দিবে।’

তিনি আরো বলেন, `আমিতো কোন সালমান এফ রহমান না। আজম জে চৌধুরী কিংবা এসআলম গ্রুপের এস আলম না। বুঝেন নাই? দেখেন আপনারা। যখন অভিযোগ পেয়েছেন, খোঁজ-খবর নেন।’

খবরটি সবার মাঝে শেয়ার করেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সব ধরনের নিউজ দেখুন
© All rights reserved © 2020 coxsbazartimes24
Theme Customized By CoxsMultimedia